সামাজিক প্রয়োজনকে ধারণ না করে কেউ শিক্ষিত হতে পারে না : কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী

ডেস্ক রিপোর্ট: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ২১ ডিসেম্বর ২০১৫, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন
7th-worker-member-con

২০শে ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের ৩ দিনব্যাপী ৭ম কেন্দ্রীয় কর্মীসদস্য সম্মেলন। ‘ছাত্র আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে সংগঠনকে সংহত ও বিস্তারে অগ্রণী হোন’ -এই আহবানকে সামনে রেখে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে ঐদিন সকাল ১০টা থেকে বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট সেমিনার হলে এ সন্মেলন শুরু হয়।
 
সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন বাসদ(মার্কসবাদী)‘র সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী। সারাদেশ থেকে প্রায় তিন শতাধিক কর্মীসদস্য এ সম্মেলনে উপস্থিত হয়।
 
‘শিক্ষার সংকট ও ছাত্র আন্দোলন গড়ে তোলা’ এ প্রসঙ্গে সন্মেলনের প্রথমদিনে উদ্বোধনী বক্তৃতায় কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী বলেন, “শাসক বুর্জোয়া শ্রেণি মুখে শিক্ষার অধিকারের কথা  বললেও শোষণমূলক ব্যবস্থার রক্ষক হবার দরুণ সে প্রতিশ্রুতিকে ফাঁকা বুলিতে পরিণত করেছে। মুনাফাভিত্তিক সমাজে শিক্ষাও ব্যবসার পণ্য । ফলে সামাজিক প্রয়োজনকে ধারণ করে মানুষ তৈরির শিক্ষা সে দিতে পারেনা, বরং শিক্ষাকে ব্যয়বহুল, খণ্ডিত, সাম্প্রদায়িক করে তুলছে প্রতিনিয়ত। ফলে শিক্ষার অধিকার নিয়ে যারা লড়বেন, তাদের  শিক্ষার সংকটকে সমাজের সামগ্রিক সংকট থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেখলে চলবে না। নিরন্তর যে শ্রেণিসংগ্রাম সমাজে চলছে,তার পটভূমিতে দাঁড়িয়ে ছাত্র সমাজকে শোষণমূলক ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনের পরিপূরক ভাবেই শিক্ষার লড়াই গড়ে তুলতে হবে।” 
 
এ সময় সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন বাসদ(মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির সদস্য কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্ত্তী। সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাইফুজ্জামান সাকন-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ কর্মীসদস্য সম্মেলন পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক স্নেহাদ্রি চক্রবর্ত্তী রিন্টু।