তনু হত্যার বিচারের দাবীতে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সমাবেশ এবং মানব বন্ধন কর্মসূচি পালন

ডেস্ক রিপোর্ট: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ২৭ মার্চ ২০১৬, ০৮:৪৩ অপরাহ্ন
BRAC-university

তনু হত্যার বিচারের দাবীতে শিক্ষার্থী সমাবেশ এবং মানব বন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ইতিহাস বিভাগের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যায় জড়িতদের দ্রুত শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থী সমাবেশ এবং মানব বন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। আজ রবিবার গুলশান মহাখালী রাস্তায় এ শিক্ষার্থী সমাবেশ এবং মানব বন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

গত ২১শে মার্চ রাতে কুমিল্লা ক্যন্টনমেন্টের অভ্যন্তরের আবাসিক এলাকায় ধর্ষণের পর তনুকে হত্যা করা হয়।

জানা গেছে, এ ঘটনার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দুপুর সাড়ে ১১ টায়  গুলশান মহাখালী রাস্তার উভয় পাশে দাঁড়িয়ে এ সময় তারা রাস্তার দুই পাশে ক্যাম্পাসের সামনে অবস্থান করে, মুখে কালো কাপড় বেঁধে, হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে মানব বন্ধন এবং সমাবেশে অংশগ্রহণ করে এবং হত্যাকাণ্ডে জাড়িতদের শাস্তি দাবি করে।

এ সময় শিক্ষার্থীদের সাথে সংহতি প্রকাশ করে মানব বন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারাও রাস্তায় দাঁড়ান এবং অবিলম্বে নারীর অধিকার ও নিরাপত্তা দাবি করেন। এছাড়া সোহাগী জাহান তনুকে ধর্ষণের পর হত্যাকে প্রতীকী স্বরূপে দেশে ঘটতে থাকা সকল নারী নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী সমাবেশ করে এবং অবিলম্বে ধর্ষক, নিপীড়কদের আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তির দাবি জানানো হয়।  পরে দেড়টার দিকে শিক্ষার্থীরা রাস্তা থেকে ক্যাম্পাসের সামনে অবস্থান নেয়।

এর আগে শিক্ষার্থীরা সচেতন ভূমিকা পালনের লক্ষ্যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় গত ২৫ শে মার্চ দিবাগত রাতে মোমবাতি প্রজ্বলন এবং আলোচনা সভার মাধ্যমে সোহাগী জাহান তনু হত্যার বিচার দাবি করে। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, নারী আজ কোথাও কোন পাবলিক প্লেসে নিরাপদ নয়, নারীর নিরাপত্তা সমাজ, এই রাষ্ট্র দিতে পাড়ছে না। যেখানে সংবিধানে সুস্পষ্ট ভাবে বলা আছে নারীর অধিকার নিশ্চিতকরণ হবে রাষ্ট্রের দায়িত্ব সেখানে আজ নারী ধর্ষকরা, নিপীড়ক রা সমাজে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়ায়। আইনের ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকে অপরাধী, আজ সমাজের সামাজিকতা থেকে বঞ্চিত হয় ভুক্তভোগী নারী। তারা এও বলেন যে, ক্যান্টনমেন্টের মত নিরাপদ জায়গায় যদি আজ নারীর নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রশ্নবিদ্ধ হয় তাহলে রাষ্ট্রের আর কোথায় নারী নিরাপত্তা চাইবে। আলোচনার সোহাগী জাহান তনুকে ধর্ষণের পর হত্যার তীব্র নিন্দার পর তাঁরা জোরালো দাবি জানান যে নারী ধর্ষকরা, নিপীড়করা কখনো আইনের ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকতে পারেন না, তাঁরা যেই হোন না কেন! প্রশাসনকে এর শক্ত ব্যবস্থা নিতে হবে এই মর্মে একমত হন।

তনু হত্যার বিচার দাবিতে তারা মাঠে নেমেছে, যতদিন অপরাধীর উপযুক্ত শাস্তি না হয় ততদিন তারা এ আন্দোলন চলিয়ে যাবে। এ সময় শিক্ষার্থীরা পরিস্থিতি সাপেক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দেন।