বিচারকদের বেতন কাঠামোর গেজেট প্রকাশ

ডেস্ক রিপোর্ট: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ১৪ এপ্রিল ২০১৬, ০৭:১৭ অপরাহ্ন
pay-scale

সরকারের অন্য চাকুরেদের মতোই ২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে বিচারকদের নতুন বেতন কাঠামো কার্যকর ধরে বুধবার ‘বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস (বেতন ও ভাতাদি) আদেশ ২০১৬’ প্রকাশ করেছে সরকার।
 
নিম্ন আদালতের বিচারকদেরও সিলেকশনগ্রেড ও টাইমস্কেল বাতিল করে নতুন পে-স্কেলে বেতন বাড়ার স্বয়ংক্রিয় দুটি পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে। এছাড়া অন্য সরকারি চাকুরের মতই ২০ শতাংশ হারে বৈশাখী ভাতা পাবেন বিচারকরা।
 
গত ২২শে ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভা ‘বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস সদস্যদের বেতন, ভাতা এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাদি নির্ধারণ’ প্রস্তাব অনুমোদন দেয়। এর এক মাস ২২ দিন পর নতুন বেতন কাঠামোর গেজেট প্রকাশ করল অর্থ মন্ত্রণালয়। সর্বশেষ ২০০৯ সালে নিম্ন আদালতের বিচারকদের বেতন-ভাতা বাড়ানো হয়েছিল।
 
আদেশ অনুযায়ী, নিম্ন আদালতের বিচারকরা চাকরিতে ঢোকার পর ৩০ হাজার ৯৩৫ টাকা মূল বেতন পাবেন। আর জেলা জজদের সর্বনিম্ন মূল বেতন ধরা হয়েছে ৭০ হাজার ৯২৫ টাকা। জেলা জজ হিসেবে পাঁচ বছর চাকরির পর জ্যেষ্ঠ জেলা জজ হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তার মূল বেতন ৭৮ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। জেলা জজদের বেতন ৩৬ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৭০ হাজার ৯২৫, অতিরিক্ত জেলা জজদের বেতন ৩২ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬২ হাজার ৩৫০, যুগ্ম-জেলা জজদের বেতন ২৮ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫৪ হাজার ৩৭০ টাকা করা হয়েছে। আর জ্যেষ্ঠ সহকারী জজদের বেতন ২৩ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪৪ হাজার ৪৫০ ও সহকারী জজদের বেতন ১৬ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০ হাজার ৯৩৫ টাকা করা হয়েছে।
 
সিলেকশনগ্রেড ও টাইম স্কেল বিলুপ্ত করে আদেশে বলা হয়েছে, একই পদে পদোন্নতি ছাড়া ১০ বছর চাকরি করলে ১১তম বছরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরবর্তী উচ্চধাপে বেতন পাবেন। ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর স্কেলে বেতন পাওয়ার পরবর্তী ছয় বছরে পদোন্নতি না পেলে সপ্তম বছরে অর্থাৎ চাকরির ১৭তম বছরে এসে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরবর্তী উচ্চতর ধাপের বেতন দেবে সরকার। ২০ শতাংশ বৈশাখী ভাতা ছাড়াও আরও ১৩ ধরনের ভাতা পাবেন নিম্ন আদালতের বিচারকরা।
 
অন্য সরকারি চাকুরেদের মত অর্জিত ছুটি নগদায়ন করে অবসরোত্তর ছুটি (পিআরএল) ছয় মাস বাড়িয়ে আঠার মাস করতে পারবেন বিচারকরা। এছাড়া বিচারকদেরও পেনশন সুবিধা ৮০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৯০ শতাংশ করা হয়েছে।