মধ্যম আয়ের দেশ বনাম সাধারণ মানুষের দীর্ঘশ্বাস

সম্পাদকীয়: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০১৫, ০১:০৫ অপরাহ্ন
current-issue-of-bangladesh

দেখতে দেখতে রমজান শেষ হয়ে যাচ্ছে। ঘটনাবহুল একটি মাস ছিলো এটি। রোজার শুরুতেই আমরা জানলাম বাংলাদেশ এখন আর নিম্নবিত্ত দেশ না। আমরা হয়ে গেছি মধ্যম আয়ের দেশ। অনেকেই উৎফুল্ল হলেন এই ঘোষণাতে। তবে এই ঘোষণার ফলে সাধারণ মানুষ কি ভাবছে বা সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রায় আদৌ এই ঘোষণার কোন প্রভাব আছে কিনা তা জানা যায় নি । যদিও মাস জুড়ে ছিলো রোজা উপলক্ষ্যে জমজমাট ইফতার পার্টি। এসব ইফতার পার্টি আয়োজনে রাজনৈতিক দলগুলোর পাশাপাশি কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোও পিছিয়ে ছিলো না। গরীব অসহায় বাচ্চাদের উপলক্ষ্য করেও আয়োজিত হয়েছে বিভিন্ন ইফতার পার্টি। সাথে সাথে এবার নতুন চমক হিসেবে ছিলো সেহেরী পার্টি। এসব জাঁকজমকের ফলে একটা জিনিস পরিস্কার হয়েছে যে সবাই মধ্যবিত্ত না হতে পারলেও বেড়ে গেছে উচ্চবিত্তের সংখ্যা।

দেশের কৃষকেরা কষ্টে উৎপাদিত ফসলের দাম পাচ্ছে না। এর মধ্যেই খাদ্য মন্ত্রণালয় ব্রাজিল থেকে ৪০০ কোটি টাকার গম কিনেছে। বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ করা হয়েছে পোকায় কাটা এসব গম খাওয়ার অযোগ্য। অবশ্য খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন এসব গম দেখতে খারাপ হলেও খাওয়ার যোগ্য।

নতুন বাজেট হয়েছে। বাজেটে এবার বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বেতনের উপর ৭.৫% ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী শিক্ষা হচ্ছে মানুষের মৌলিক অধিকার। বিশেষজ্ঞদের মতে এই ভ্যাট আরোপের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষাকে পণ্য হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হলো।

ভারতের প্রধাণমন্ত্রী নরেন্দ্রমোদীর সফরের পরও ভারতের সাথে তিস্তা চুক্তির মতো দ্বিপাক্ষিক ব্যাপারগুলোর সমাধান হয়নি, তারপরও ভারতের দুই অংশের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করার জন্য আসাম থেকে আখাউড়া পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ রেলপথ করা হচ্ছে। ভারত বাংলাদেশের সীমান্তে ভারত শত শত মোবাইল টাওয়ার বসাচ্ছে। আরো উল্লেখযোগ্য খবর হলো ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের সংগঠন বিজিএমইকে গুজরাটে ৫০ একর জমি দান করছে।

ঈদ সামনে। অথচ বরাবরের মতো এবারও অধিকাংশ গার্মেন্টস কারখানা ঈদের আগে বেতন, বোনাস পরিশোধ করছে না। এমনকি তিন মাসের বেতন বোনাস পরিশোধ না করেই কারখানা বন্ধ করে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে। যদিও সরকার থেকে মালিক পক্ষকে নির্দিষ্ট সময়ে বেতন বোনাস পরিশোধ করার কথা বলা হয়েছিল। তাই এবারের ঈদও শ্রমজীবীদের কাটবে দীর্ঘশ্বাসের মধ্যে দিয়ে।

এতো ডামাডোলের মধ্যেই ঘটে গেলো এক মর্মান্তিক ঘটনা। দেশের এক শ্রেণীর মানুষ যখন দেশ মধ্যব্ত্তি হয়ে গেছে বলে তৃপ্তির ঢেকুর তুলছে তখনই যাকাতের কাপড় সংগ্রহ করতে যেয়ে মানুষের ভিড়ে পদদলিত হয়ে মারা গেল ২৭ জন মানুষ। এই ঘটনাই আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় দেশের প্রকৃত অব্স্থা। বিত্তবানরা একদিকে সেহেরী পার্টির মতো বিভিন্ন বিলাসী কর্মে লক্ষ লক্ষ টাকার শ্রাদ্ধ করছে অন্যদিকে সস্তা জনপ্রিয়তার জন্য যাকাত দেওয়ার নাম করে মানুষকে পোকমাকড়ের মতো পদপিষ্ট করে মারছে।