আজ বহুমাত্রিক লেখক হুমায়ুন আজাদের ১২ তম মৃত্যু বার্ষিকী

শিল্প ও সাহিত্য: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ১১ আগস্ট ২০১৬, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন
12-death-anniversary-of-humayun-azad

আজ (১১ই আগস্ট) বহুমাত্রিক লেখক  ও ভাষাবিজ্ঞানী হুমায়ুন আজাদের ১২ তম মৃত্যু দিবস। অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদ ছিলেন একজন প্রথাবিরোধী ও বহুমাত্রিক মননশীল লেখক। তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৭০ টির বেশি। আজাদের ১০টি কাব্যগ্রন্থ, ১৩টি উপন্যাস, ২২টি সমালোচনা গ্রন্থ, ৮টি কিশোরসাহিত্য, ৭টি ভাষাবিজ্ঞান বিষয়ক গ্রন্থ তাঁর জীবদ্দশায় এবং মৃত্যুর অব্যবহিত পরে প্রকাশিত হয়।  তাঁকে ১৯৮৬ সালে বাংলা একাডেমী পুরস্কার এবং ২০১২ সালে সামগ্রিক সাহিত্যকর্ম এবং ভাষাবিজ্ঞানে বিশেষ অবদানের জন্যে মরণোত্তর একুশে  পদক প্রদান করা হয়।  
 
তিনি ১৯৭৬ সালে তিনি এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভাষাবিজ্ঞানে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁর গবেষণার বিষয় ছিল বাংলা ভাষায় সর্বনামীয়করণ। এই গবেষণাপত্র পরবর্তীকালে ১৯৮৩  সালেপ্রোনোমিনালাইজেশান ইন বেঙলি নামে বাংলা একাডেমী থেকে গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়।
 
১৯৭৮ সালের ১লা নভেম্বর আজাদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহযোগী অধ্যাপক হিসাবে যোগদান করেন এবং পরবর্তী কালে কয়েক বছর বাংলা বিভাগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৬ সালে তিনি বাংলা বিভাগে অধ্যাপক পদে উন্নীত হন।
 
১৯৯২ সালে তার নারীবাদী গবেষণামূলক গ্রন্থ নারী প্রকাশিত হলে দেশে ব্যাপক আলোড়ম তৈরী হয়। বইটি ১৯৯৫ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে নিষিদ্ধ  ছিলো।
 
২০০৪ এ প্রকাশিত হয় হুমায়ুন আজাদের পাক সার জমিন সাদ বাদ গ্রন্থ। এই গ্রন্থটি প্রকাশিত হলে দেশের মৌলবাদী গোষ্ঠি তার প্রতি ক্রুদ্ধ হয়, এবং বিভিন্ন স্থানে হুমায়ুন আজাদের বিরুদ্ধে প্রচারনা চালায়। আর তারই জের ধরে ২০০৪ সালে হুমায়ুন আজাদের উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়।   
 
সন্ত্রাসী হামলা থেকে বেঁচে ফিরলেও ঐ একই বছরে মিউনিখে তার মৃত্যু  হয়।