তিস্তার পানি নিয়ে মোদি ও মমতা দুজনেই মিথ্যা কথা বলছেন

ডেস্ক রিপোর্ট: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ১১ এপ্রিল ২০১৭, ০২:০৬ পূর্বাহ্ন
about-teest

তিস্তার পানি নিয়ে ভারতের  কেন্দ্র ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য  মিলিত ভাবে মিথ্যাচারের মাধ্যমে বাংলাদেশকে ঠকাচ্ছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি দুজনেই এই নিয়ে মিথ্যা কথা বলছেন। আর  নতজানু পরাষ্ট্রনীতির কারণে বাংলাদশ এই বিষয়ে  ভারতকে বাধ্য করতে পারছে না বাংলাদেশ।

সম্প্রতি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরকালে মমতা ব্যানার্জি 'তিস্তায় জল নেই' বলে যে  কথা বলছেন তাকে মিথ্যাচার বলছেন বিশেষজ্ঞরা। জার্মান রেডিও ডয়চে ভেলেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের পানি ও নদী বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী ইমামুল হক বলেন,  "তিস্তায় পানি  আছে,  আসলে পানি এক জায়গায় লুকিয়ে রাখা হচ্ছে। সিকিমে যেখানে তিস্তার উৎপত্তি সেখানে ড্যাম দিয়ে পানি আটকে রাখা হচ্ছে। এই কথাটা মমতা লুকিয়ে যাচ্ছেন। আর সিকিম   যেটুকু  ছাড়ছে সেই পানি  তিনি বাংলাদেশে না পাঠিয়ে নিজেই নিয়ে নিচ্ছেন। আসলে তো  নিজেও নিতে পারচ্ছেন না , সেই পানি  কেন্দ্রীয় সরকার মিরচি নদী দিয়ে গঙ্গায় নিয়ে যচ্ছে এবং কেন্দ্রীয় সরকার কৌশলে আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প বস্তবায়ন করছে । ফলে তিস্তায় জল নেই এটা   মমতা মিথ্যে বলছেন"।   
 
 পাশাপাশি রিভারাইন পিপল-এর মহাসচিব শেখ রোকন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘ তিস্তায় পানি নেই – এই অনুমান বিশ্বাসযোগ্য মনে হয় না৷ এই যুগে কিছু গোপন করা যায় না৷  এমনকি  গুগল বা স্যাটেলাইট ইমেজে সব কিছু স্পষ্ট দেখা যায়৷ সেখানে দেখা যাবে যে সেচ খাল দিয়ে গজলডোবা ব্যারেজে থেকে পানি নেওয়া হচ্ছে মহানন্দা নদীতে এবং সেখান থেকে এই পানি  নেওয়া হচ্ছে মিরচি নদীতে , সে দুটো নদী বিহারের দিকে গেছে। আর দ্বিতীয়ত হচ্ছে যে  তিস্তার  পানি দিয়ে পশ্চিমবঙ্গে যে সেচ প্রকল্পসহ আরো অনেক প্রকল্প সেটাও তো  সচল আছে। ফলে তিস্তায় পানি আছে হয়তো একটু কমতে পারে, সেটা সিকিমে অনেক গুলো ড্যাম দেবার কারণে,  কিন্তু পানি নেই এরকমক পরিস্থিতি হয় নি। ''

ফলে দেখা যাচ্ছে  ভারতের কেন্দ্র ও রাজ্য কোন পক্ষই বাংলাদেশেকে তিস্তার পানির ন্যায্য  হিস্যা  দিতে আগ্রহী নয়। কেন্দ্র সরাসরি না করছে না কিন্তু কৌশলে পানি সরিয়ে নিচ্ছে আর রাজ্য    সরকারকে  দিয়ে  তিস্তায় পানি নেই বলে মিথ্যা কথা প্রচার করছে।