কলম্বাস ও তাঁর ডিমের নতুন সমাধান

দর্শন ও বিজ্ঞান: পোস্টকার্ড | প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০১৫, ০৯:২৪ অপরাহ্ন
colombus_egg


ইয়া. পেরেলমান

  কলম্বাস তার বিখ্যাত সমস্যা – ডিমকে কিভাবে তার একপ্রান্তের উপর দাঁড় করানো যায়, তা অতি সহজেই সমাধান করেন। তিনি ডিমের মাথাটা একটু ফাটিয়ে নিয়েছিলেন। ঘটনাক্রমে কলম্বাস ও তাঁর ডিমের এই জনপ্রিয় উপাখ্যান প্রকৃতপক্ষে সত্য নয়।জনশ্রুতি এই যে, এই ডিম বসানোর ঘটনাটি এই বিখ্যাত আবিষ্কারকের অনেক আগে আর একজন লোক সম্পূর্ণ অন্য কারণে সংঘটিত করেন। ইনি হলেন ইতালীর স্থপতি ব্রুন্নেলেসকি যিনি ফ্লোরেনটাইন ক্যাথিড্রালের বিরাট গম্বুজ নির্মাণ করেন। তিনি দাবি করেন: “আমার নির্মিত গম্বুজ ওর জায়গায় থাকবে ঠিক তেমনি ভালোভাবে যেমনভাবে একটা ডিম তার সরু প্রান্তের উপর দাঁড়িয়ে থাকে।”

 প্রকৃতপক্ষে কলম্বাসের সমাধান সম্পূর্ণ ভুল। কলম্বাস যখন ডিমটিকে ফাটিয়ে নিলেন তখনেই তিনি ডিমের আকারের পরিবর্তন সাধন করলেন। এর অর্থ দাঁড়ায় ওটা আর আগের ডিমটি রইলো না, অন্য বস্তু হয়ে দাঁড়ালো, যাকে তিনি তার প্রান্তের উপর দাঁড় করাতে চেয়েছিলেন। সমস্যাটা মূলত ডিমের অমন আকরের জন্যই। যখনই সেই আকারের পরিবর্তন সাধন করা হলো, তখনই ডিমের পরিবর্তে অন্য কিছু দাঁড়ালো। সুতরাং কলম্বাস যে সমাধান করলেন তা আর প্রকৃত যে বস্তু পূর্বে ছিল তার জন্য হল না। কিন্তু আমরা ঐ বিখ্যাত নাবিকের সমস্যাটার সমাধান করতে পারি, ডিমের আকারের পরিবর্তন সাধন না করেই লাটিমের ঘূর্ণনের ধর্মকে কাজে লাগিয়ে। ডিমটাকে কেবল ওর প্রান্তের উপর ঘোরাও। না পড়ে গিয়ে কিছুক্ষন অন্তত ওটা ওর প্রান্তের উপর দাঁড়িয়ে থাকবে। কেবল মাত্র সিদ্ধ ডিমই নাও। কলম্বাসের সমস্যার সঙ্গে এর কোনো গরমিল হবে না, কারণ তিনিও পরীক্ষাটা দেখানোর সময় নিশ্চয়ই খাবার টেবিল থেকে ডিমটা সংগ্রহ করেছিলেন। সুতরাং ঐ ডিমটাও নিশ্চয়ই সিদ্ধ ডিম ছিলো।কাঁচা ডিম ঘোরানো সম্ভব নয়, কারন এর জলীয় অংশ ঘোরার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে। প্রসঙ্গক্রমে এটা বহু গৃহিনীর জানা একটা সরল পন্থা দেখিয়ে দেয় যার সাহায্যে কোনটা কাঁচা ডিম এবং কোনটা সিদ্ধ করা ডিম তা বলা যায়।